সিলিকা জেলের (Silica Gel) বহুবিধ ব্যবহার

HelloBanglaWorld - Know Everything in Banglaটিপস ও ট্রিক্সসিলিকা জেলের (Silica Gel) বহুবিধ ব্যবহার
Advertisements

সিলিকা জেল (Silica gel) আমরা কম-বেশী সবাই দেখেছি। নতুন জুতো, ব্যাগ বা প্লাস্টিকের বোতলের ভেতর ছোট মুখ-বন্ধ থলিতে এটি থাকে। দেখতে কিছুটা স্বচ্ছ ছোট ছোট সাদা দানা, একে বলা হয় সিলিকা জেল। এই সিলিকা জেলের কাজ হল আর্দ্রতা শুষে নিয়ে নিজের মধ্যে ধারণ করে রাখা। এই ব্যাগটা ফেলে না দিয়ে আমাদের দৈনন্দিন কিছু কাজে একে ব্যবহার যেতে পারে।

সিলিকা জেল এর সাথে পরিচয়

সিলিকা জেল একটি রাসায়নিক পদার্থ যার নাম সিলিকন ডাই অক্সাইড; সিলিকন এবং অক্সিজেন এর সমন্বয়ে গঠিত একটি খনিজ; রাসায়নিক সংকেত (SiO2)। এটি ভঙ্গুর, কাঁচের ন্যায় স্বচ্ছ এবং ছিদ্রযুক্ত একটি পদার্থ; সিলিকা জেলের অনুগুলোর ফাঁকে পানি বা বাষ্প শুষে নেয়ার মত যথেষ্ট জায়গা থাকায়, এগুলো নিজের ওজনের ৪০ ভাগ পর্যন্ত পানি বা বাস্প শুষে নিয়ে কোন কনটেইনারের আর্দ্রতা ৪০ ভাগ পর্যন্ত কমিয়ে দিতে পারে।

সিলিকা জেল এর রাসায়নিক সংকেত

সিলিকা জেল এর রাসায়নিক সংকেতঃ SiO2

বাজারে সিলিকা জেল কয়েকটি রঙে পাওয়া যায়: নীল রঙ, সাদা রঙ, কমলা রঙ বা স্বচ্ছ রঙের। এক ধরণের সিলিকা জেল শুষ্ক অবস্থায় সাদা বর্ণের হয়। আর্দ্রতা শুষে নিয়ে এই রঙ ক্রমশ নীল রঙ হতে থাকে। সিলিকা জেলের বর্ণ সম্পূর্ণ নীল রঙে পরিবর্তিত হলে, এর জলীয় বাষ্প শোষণের ক্ষমতা একেবারে হারিয়ে ফেলে।

বাজারে সিলিকা জেল কয়েকটি রঙে পাওয়া যায়: নীল রঙ, সাদা রঙ, কমলা রঙ বা স্বচ্ছ রঙের। এক ধরণের সিলিকা জেল শুষ্ক অবস্থায় সাদা বর্ণের হয়। আর্দ্রতা শুষে নিয়ে এই রঙ ক্রমশ নীল রঙ হতে থাকে। সিলিকা জেলের বর্ণ সম্পূর্ণ নীল রঙে পরিবর্তিত হলে, এর জলীয় বাষ্প শোষণের ক্ষমতা একেবারে হারিয়ে ফেলে।

সিলিকা জেল Silica gel blue color
শুষ্ক নীল বর্ণের সিলিকা জেল জলীয় বাষ্প শুষে গোলাপী বর্ণ ধারণ করেছে

এই অবস্থায় একে কোন লোহা বা এ্যালুমিনিয়ামের পাত্রে নিয়ে হালকা আঁচে ১৫/২০ মিনিট গরম করতে থাকলে, এর ভিতরের জলীয় বাস্প ক্রমশ: বের হয়ে যেতে থাকে। এই গরম করার প্রক্রিয়াতে সিলিকা জেল’র রঙ আবার ধীরে ধীরে সাদাতে পরিণত হয়। এভাবে ৬-১০ বার পর্যন্ত সিলিকা জেলকে আবারও নুতনের মত ব্যবহার করা যায়।

সিলিকা জেল Silica gel blue color
শুষ্ক নীল বর্ণের সিলিকা জেল জলীয় বাষ্প শুষে সাদা বর্ণ ধারণ করেছে

যত বড় কন্টেইনার, তত বেশি সিলিকা জেল’র প্রয়োজন হবে। এ ক্ষেত্রে বাজার থেকে কেজি দরে সিলিকা জেল কিনতে হয়। সাধারণত: খোলা বাজারে ৭০০ টাকা কেজি (কম/বেশি) সিলিকা জেল পাওয়া যায়।

সিলিকা জেলের নানাবিধ কাজে ব্যবহার নিয়েই আজকের এই আর্টিকেল।

সিলিকা জেলের (Silica Gel) বহুবিধ ব্যবহার

পানি থেকে মোবাইল ফোন বাঁচাতে

smartphone-in-silica-gel

মোবাইল ফোন পানিতে পড়ে গেলে বা পানি লেগে গেলে প্রথমে মোবাইল ফোন থেকে সিমটি বের করে নিন। তারপর একটি বায়ুরোধী বাটিতে বেশকিছু সিলিকা জেল রাখুন। এর মধ্যে মোবাইল ফোনটি কয়েক দিন রেখে দিন। সিলিকা ব্যাগ মোবাইলের সব পানি শুষে নেবে। আর ফোনটিও নষ্ট হওয়া থেকে রক্ষা পাবে।

কাগজ সংরক্ষণ

কয়েকটি সিলিকা জেলের প্যাকেট কাগজপত্র রাখার স্থানে রেখে দিন। পোকামাকড় ও ব্যাকটেরিয়ার হাত থেকে সিলিকা ব্যাগ কাগজপত্রকে রক্ষা করবে।

ছবি সংরক্ষণ

পুরনো ছবি অনেক সময় ফাংগাশ পড়ে স্যাঁতসেঁতে হয়ে যায়। ছবিগুলোর মধ্যে সিলিকা ব্যাগ রেখে দিন। দেখবেন ছবিগুলো আর স্যাঁতসেঁতে হবে না।

কাপড় শুকনো রাখতে

শীত শেষে শীতের কাপড় আলমারিতে তুলে রাখতে হয় পরের বছরের জন্য। যখন বের করা হয় তখন কাপড়ে এক ধরনের গন্ধ বের হয়। তাই শীতের কাপড় সংরক্ষণের সময় দুই থেকে তিনটি সিলিকা ব্যাগ রেখে দিন কাপড়ের ভাঁজে ভাঁজে। কাপড়ে কোনো গন্ধ থাকবে না।

গহনার মান ধরে রাখতে

বিভিন্ন ধরনের গহনা কিছুদিন ফেলে রাখলেই জৌলুস হারায়। তবে আপনি যদি এগুলো আবদ্ধ পাত্রে

সিলিকা জেল দিয়ে রাখেন তাহলে দীর্ঘদিন ভালো থাকবে।

রেজারের স্থায়িত্ব বৃদ্ধি

দীর্ঘদিন রেজার ব্যবহার করলে রেজারে জং ধরে যায়। আর রেজারে ব্লেড থেকে জং ছাড়ানো অসম্ভব। একটি কনটেইনারে কিছু সিলিকা জেলের ব্যাগ রেখে দিন তার মধ্যে রেজারটি রাখুন। দেখবেন রেজার ব্লেডে আর জং ধরছে না।

বীজ সংরক্ষণে

যারা বাগান করতে পছন্দ করেন এবং বীজ সংরক্ষণ করেন তারা খুব সহজেই সিলিকার মাধ্যমে বীজ অনেক দিন পর্যন্ত ভাল রাখতে পারেন । এজন্য এয়ারটাইট পাত্রে বীজ রেখে তাতে প্রয়োজনীয় মাত্রার সিলিকা জেল দিয়ে রেখে দিন। বিভিন্ন ধরনের বীজ আলাদা আলাদাভাবে আলাদা বাক্সে সংরক্ষন করুন । এতে বীজগুলো অনেকদিন পর্যন্ত ভাল থাকবে।

সিলিকা জেল ব্যবহারের হিসাব

আপনার কনটেইনারের পরিমাপ অনুযায়ী সিলিকা জেল কতটুকু লাগবে, তার হিসাব কষে বের করা যায়। সাধারণত: এয়ারটাইট কন্টেইনারের জন্য প্রতি ঘণমিটারে ২০০ গ্রাম সিলিকা জেল ব্যবহার করলে ভাল ফলাফল পাওয়ার আশা করা যায়।

সিলিকা জেল কি বিষাক্ত? খেলে কি হয়?

এক কথায়, সিলিকা জেল কোন অবস্থাতেই গলধ:করণ করা যাবে না। খেয়ে নিলে গুরুত্বর অসুস্থ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। কারণ, এটি পেটে গেলে অস্বাচ্ছন্দ্য বা বমি-ভাব হতে পারে। তবে, সিলিকা জেল খেয়ে মারা যাবার ঝুঁকি নেই। তবে, এটি অবশ্যই শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।

সিলিকা জেল যেখানে-সেখানে ফেলা উচিত নয়

সিলিকা জেল যেখানে-সেখানে না ফেলে গারবেজ বিনে রাখুন এবং সিটি কর্পোরেশনের গারবেজ কালেক্টরদের হাতে দিয়ে দিন যাতে তারা শহরের বাহিরে নির্দিষ্ট গারবেজ ডিসপোজাল ডিপোতে নিয়ে সঠিকভাবে মাটিচাপা দিতে দিতে পারে।

কম খাটুনিতে রান্নাঘর পরিষ্কার করতে চান?
আদর্শ গৃহিনী যেভাবে রান্নাঘর পরিষ্কার রাখেনআদর্শ গৃহিনী যেভাবে রান্নাঘর পরিষ্কার রাখেন
Silica Gel দিয়ে কি কি করা যায়, তা জানতে ভিডিওটি একবার দেখে নিতে পারেন।

সিলিকা জেল কোথায় কিনতে পাওয়া যায়

ঢাকার হাটখোলা রোড এলাকায় অনেক সায়েন্টিফিক ডিভাইসের দোকান আছে, সেখানে এগুলো কিনতে পাওয়া যায়। এছাড়াও, পল্টন, বায়তুল মোকাররম বা এলিফ্যান্ট রোডস্থ ফটোগ্রাফিক ইকুইপমেন্ট বিক্রি করে এমন দোকানে সিলিকা জেল পাওয়া যেতে পারে। আর, সস্তায় কিনতে হলে যেতে হবে পুরনো ঢাকার মিটফোর্ড রেডের কেমিকাল মার্কেটে। প্রতি কেজি সিলিকা জেলের দাম প্রায় চারশ থেকে পাঁচশ টাকার মধ্যে পাওয়া যায়।

এছাড়াও, অনেকে ফেসবুকে ফ্যানপেজের মাধ্যমে সিলিকা জেল বিক্রি করে থাকে। প্লাস্টিকের এয়ারটাইট কন্টেইনার (air tight container), হিউমিডিটি মিটার (humidity meter) এবং সিলিকা জেল একত্রে প্যাকেজ আকারে বিক্রি করে থাকেন। বাংলাদেশের যে সব জেলাতে কুরিয়ার সার্ভিস রয়েছে, সেখানে পার্সেল আকারে এই প্যাকেজের মালামাল পৌঁছে দিয়ে থাকেন।

পড়ার মত আরও আছে

ক্যাটাগরিঃ টিপস ও ট্রিক্স