বাস ও ট্রেনের জন্য Google Maps এর নতুন ফিচার: Google Transit

HelloBanglaWorld - Know Everything in Banglaবিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবাস ও ট্রেনের জন্য Google Maps এর নতুন ফিচার: Google Transit
Advertisements

বাংলাদেশে নতুন ফিচার চালু করলো গুগল ম্যাপস (Google Maps)। ‘গুগল ট্রানজিট’ (Google Transit) নামে নতুন এই ফিচারটি চালু হওয়ার পর রাজধানীতে নিয়মিত গণপরিবহনে যাতায়াতকারীরা খুব সহজেই গণপরিবহন সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য পাবেন।

আজ বৃহস্পতিবার থেকে চালু হওয়া এ ফিচারটির মাধ্যমে বাস ও ট্রেনের রুট, স্টপেজ ও ভ্রমণের আনুমানিক সময় দেখাবে গুগল ম্যাপস। যার মাধ্যমে গণপরিবহন ব্যবহারকারীরা তাদের ভ্রমণের পরিকল্পনা ঠিক করে নিতে পারবেন। নতুন এই ফিচারটি প্রাথমিকভাবে রাজধানীতে চলাচলকারী বাস ও বাংলাদেশ রেলওয়ে পরিচালিত ট্রেনের জন্য প্রযোজ্য হবে।

গণপরিবহনে চলাচলকারীদের মধ্যে যাদের লোকেশন ও রুট সম্পর্কে ধারণা নেই, তারা গুগল ট্রানজিটের মাধ্যমে তাদের যাত্রার আনুমানিক সময় জেনে নিতে পারবেন। অ্যাপটির ইউআই ও ফাংশনালিটি খুবই সাধারণ করা হয়েছে।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়- কেউ যদি জাতীয় সংসদ ভবন থেকে লালবাগ কেল্লায় যেতে চান, তাহলে তাকে দু’টি লোকেশনে টাইপ করতে হবে। তারপর, গুগল ট্রানজিট তাৎক্ষণিকভাবে সেই ব্যক্তিকে কাছের বাস স্টপেজে যাওয়ার পথ, কোন বাসে উঠতে হবে, কোন রুটে যেতে হবে ও কোন স্টপেজে নামতে হবে, গন্তব্যের আনুমানিক দূরত্ব এবং ভাড়া সংক্রান্ত তথ্য জানিয়ে দিবে।

গুগল ট্রানজিট ব্যবহার করবেন

নিচের সহজ ধাপগুলো অনুসরণ করে ব্যবহারকারীরা গণপরিবহন সংক্রান্ত তথ্য জানতে পারবেন:

১. অ্যান্ড্রয়েড কিংবা আইওএস ডিভাইসে গুগল ম্যাপস ওপেন করতে হবে,

২. ডেস্টিনেশন এন্টার করতে হবে এবং ‘ডিরেকশনস’ আইকন ট্যাপ করতে হবে কিংবা ‘গো’ আইকন ট্যাপ করতে হবে এবং ‘সোর্স’ এবং ‘ডেস্টিনেশন’ লোকেশন এন্টার করতে হবে,

৩. রুট এবং গন্তব্য সংক্রান্ত তথ্য জানতে ‘ট্রানজিট’ আইকন (যদি এটা ইতিমধ্যে নির্বাচন করা না হয়) ট্যাপ করতে হবে,

৪. রুটের স্টপেজ সংক্রান্ত জানতে রেকমেন্ডেড রুট ট্যাপ করতে হবে,

৫. বাসের সময়সূচি ও গন্তব্যের তালিকা জানতে যেকোনও বাস স্টপ ট্যাপ করতে হবে।

আরও পড়ুন:  কোন দেশের হাতে কতগুলো পরমাণু অস্ত্র আছে?

নতুন এ ফিচার নিয়ে এটুআই (অ্যাসপায়ার টু ইনোভেট) প্রোগ্রাম, আইসিটি মন্ত্রণালয় ও ক্যাবিনেট অফিস, বাংলাদেশ সরকার ও ইউএনডিপি বাংলাদেশ-এর পলিসি অ্যাডভাইজার আনীর চৌধুরী বলেন, ‘বাংলাদেশে এর আগে রাইডারদের জন্য গুগল ম্যাপে কয়েকটি নতুন ফিচার চালু করেছিলো গুগল। এই ফিচারগুলোর মধ্যে ছিলো- বাংলাতে টু-হুইলার নেভিগেশন মোড এবং টার্ন-বাই-টার্ন ভয়েস নেভিগেশন। নাগরিকদের উন্নতমানের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা দিতে গুগলের ধারাবাহিক সহায়তা কার্যক্রমে আমরা আনন্দিত।’

তিনি আরও বলেন, ’বাংলাদেশ সরকারের ফ্ল্যাগশিপ ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন প্রোগ্রাম হিসেবে গণপরিবহন সংক্রান্ত তথ্য বিষয়ক গুগল ম্যাপসের নতুন ফিচারের উন্মোচন এটুআই’র জন্য আনদন্দায়ক। এখানে বাস ও ট্রেনের সময়সূচি যুক্ত করা হয়েছে, যা ভ্রমণকারীদের পরিকল্পিত ভ্রমণের বিষয়টি নিশ্চিত করবে। এটি নিঃসন্দেহে নাগরিকদের জন্য যুগান্তকারী এক উদ্যোগ। অনেক উন্নত দেশে এই ফিচারটি অনেক আগেই চালু করা হয়েছে। নতুন এ ফিচারটি গণপরিবহনে চলাচলকারীদের দুর্দান্ত ভ্রমণ অভিজ্ঞতা দিবে এবং তাদের সময় ও অর্থ সাশ্রয় করবে বলে আমাদের বিশ্বাস।’

প্রসঙ্গত, গুগল ম্যাপস প্রতিদিন ১ বিলিয়ন কিলোমিটারেরও বেশি ট্রানজিট রেজাল্ট সরবরাহ করে এবং এর বিশ্বজুড়ে এর কাছে ৩ মিলিয়নেরও বেশি গণপরিবহনের পাবলিক ট্রানজিটের সময়সীমার তথ্য রয়েছে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের শতাধিকেরও বেশি শহরে সবসময় নতুন পার্টনার যুক্ত হওয়ার মাধ্যমে গুগল ট্রানজিট ফিচারটি তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

মূলত, গুগলের লক্ষ্য হলো, তথ্য একত্রিত করে বিশ্বব্যাপী সবার ব্যবহারের উপযোগী করে তোলা। সার্চ, ম্যাপস, জিমেইল, অ্যান্ড্রয়েড, ক্রোম ও ইউটিউব, গুগল প্লে-এর মতো পণ্য ও প্ল্যাটফর্মগুলো লাখো মানুষের জীবনকে অর্থপূর্ণ করতে ভূমিকা রাখছে। ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি বিশ্বব্যাপী সুপরিচিতি লাভ করেছে। অ্যালফাবেট ইনকরপোরেটের সাবসিডিয়ারি গুগল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.