স্মার্টফোনের ব্যাটারি দীর্ঘদিন ভালো রাখার বেস্ট টিপস (Phone battery health tips)

HelloBanglaWorld - Know Everything in Banglaটিপস ও ট্রিক্সস্মার্টফোনের ব্যাটারি দীর্ঘদিন ভালো রাখার বেস্ট টিপস (Phone battery health tips)
Advertisements

মোবাইল ফোন হোক আর ট্যাব হোক – নতুন কিনবার পর মোবাইল ডিভাইসের অধিকাংশ ব্যবহারকারী খুব যত্ন সহকারে ব্যবহার করেন। কিন্তু, কত জন ব্যবহারকারী তাদের মোবাইল ডিভাইসের ব্যাটারীর স্বাস্থ্য (phone battery health) সুরক্ষা নিয়ে চিন্তা করেন? ফোন যখন ভালভাবে চলতে থাকে তখন এ ব্যাপারে কোন মাথা ব্যাথা থাকে না – ব্যাটারীর চার্জ শেষ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত মোবাইল ফোন হাত থেকে নামেই না! ১০ এর দাগে চার্জ নামলে চার্জ দেয়ার জন্য চার্জারের খোঁজ পরে!!

স্মরণে রাখতে হবে, চার্জের ভুল পদ্ধতি ব্যাটারীর দীর্ঘ আয়ুতে অনেক পার্থক্য গড়ে দেয় – কিন্তু হায়! ব্যবহারকারীদের এ ব্যাপারে কোন ভ্রুক্ষেপই নেই।

সঠিক নিয়ম চার্জ দিয়ে এ্যান্ড্রয়েডসহ সহ অন্যান্য ব্র্যান্ডের ফোনের ব্যাটারীর আয়ু কিভাবে বাড়িয়ে নেয়া যায় এবং এটি জানা কেন জরুরী – তা জানতে এই লেখাটি এক নিঃশ্বাসে পড়ে ফেলি। যদি লেখাটি ভাল লাগে তবে বন্ধুদের সাথে আপনার প্রিয় সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করে জানিয়ে দিন।

সারা রাত চার্জ নয়

অনেকেই রাতের বেলা ফোন চার্জে দিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। এতে ফোনটি সারা রাত ধরে চার্জ হয়। এর ফলে ওভার চার্জিং হয়ে থাকে। যা ফোনের জন্য মোটেও ভালো কিছু নয়। এছাড়া সারা রাত ফোনে চার্জে দেয়ার ফলে ব্যাটারি অতিরিক্তি গরম হয়ে বিস্ফোরণও ঘটতে পারে।

স্টক চার্জার (stock charger) ব্যবহার করুন

ফোনের সাথে আসা চার্জার (stock charger) দিয়ে ফোনটিকে চার্জ দিন। যদি নিজস্ব চার্জারে চার্জ দেয়া হয় তবে ব্যাটারির আয়ু বাড়ে। এখন অবশ্য ফোনে চার্জ দেয়ার জন্য রয়েছে মাইক্রো ইউএসবি পোর্ট, তাই একই মডেলের যে কোনো চার্জার দিয়ে ফোনে চার্জ দেয়া যায়।

তবে যদি চার্জিংয়ের সময় ফোনের নিজস্ব চার্জার ব্যবহার না করা হয়, তাহলে ধীরে ধীরে ব্যাটারির চার্জ ধরে রাখার ক্ষমতা কমতে থাকে।

ফোন কখন চার্জে দিবেন?

ফোনে ২০ শতাংশের উপরে চার্জ থাকলে চার্জ দেয়া উচিত নয়। আবার ব্যাটারি চার্জ শূন্য করেও চার্জে দেয়া ঠিক নয়। কেননা অপ্রয়োজনীয় রিচার্জে ব্যাটারির আয়ু কমে যায়। সেক্ষেত্রে কমপক্ষে ৫-২০ শতাংশ চার্জ থাকা অবস্থায় ফোন চার্জে দেয়া ভালো।

চার্জের পূর্বে আলগা কাভার খুলে রাখুন

যখন ফোন চার্জে দেওয়া হয় তখন ব্যাটারি কিছুটা গরম হয়ে যায়। ব্যাটারি গরমের প্রভাব ফোনে ছড়িয়ে পড়ে। তাই ফোনকে অতিরিক্ত গরমের হাত থেকে রক্ষা করতে চার্জে থাকা অবস্থায় ফোনের নিরাপত্তামূলক কেসিং বা কভার খুলে রাখা উচিত।

পাওয়ার ব্যাংক? এই কথাটি মনে রাখুন

পাওয়ার ব্যাংক ব্যবহারের সময় পাওয়ার ব্যাংকের মাধ্যমে চার্জ দেয়া অবস্থায় ফোন ব্যবহার করা উচিত নয়। কেননা পাওয়ার ব্যাংকের সাহায্যে চার্জ করার সময় ব্যাটারি গরম হয়ে যায়। একই সময় ফোনটি ব্যবহার করলে তা আরো গরম হয়ে যাবে। যা ব্যাটারির জন্য ক্ষতিকর।

সস্তা চার্জার থেকে দূরে থাকুন

অনেক সময় ফোনের জন্য নির্ধারিত চার্জারটি হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে অনেকেই বাজার থেকে সস্তা ও অখ্যাত ব্র্যান্ডের চার্জার কেনেন। এসব চার্জারে চার্জ দিলে ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে যায়। চার্জ হতেও সময় বেশি নেয়। আর অ্যাডাপ্টারে সমস্যা দেখা দিলে ফোন ও ব্যাটারি দু’টোই নষ্ট হতে পারে। তাই সস্তা চার্জার ব্যবহার না করাই ভালো।

ব্যাটারী এ্যাপ উল্টা ব্যাটারীর ক্ষতি করে!

ব্যাটারি অ্যাপ্লিকেশন ফোনের জন্য অনেক থার্ডপার্টি ব্যাটারি অপটিমাইজ অ্যাপ রয়েছে। এই অ্যাপগুলো ফোনের ব্যাকগ্রাউন্ডে চালু থাকে। এতে করে ফোনের চার্জ আরো বেশি ব্যয় হয়।

এছাড়া লকস্ক্রিনের অ্যাপগুলো এড লোড করে থাকে। তাই ফোনে আলাদা কোনো ব্যাটারি অ্যাপ ব্যবহার করা উচিত নয়।


ব্যাটারী চার্জের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য পরামর্শ

  • ৫-১০ ভাগে চার্জ নেমে আসলেই কেবল চার্জ করুন এবং চার্জ দেয়া শেষ হলে ফোন খুলে নিন।
  • ওয়্যারলেস চার্জার ব্যবহারে কোন সমস্যা নাই – নির্ভয়ে ব্যবহার করতে পারেন।
  • ব্যাটারীর আয়ুষ্কাল নিয়ে সন্দেহ থাকলে কুইক চার্জার ব্যবহারে সংযত হন। মনে রাখা ভাল যে, সঠিক পদ্ধতিতে চার্জ দিলে ব্যাটারীর খুব কমই ক্ষতি হয় বা এ থেকে বিপদের মাত্রা একেবারে কম।
  • ফোনের চার্জ ১০% এর নিচে নেমে গেলে ফোন ম্যানুয়ালি শাটডাউন করে দিতে পারেন এবং এ ভাবেই কিছুক্ষণ চার্জে দিয়ে ফোন ফেলে রাখুন।
  • ব্যাটারী নষ্ট হয়ে গেলে সেটা বের করে নিন – কখনই ফোনের মধ্যে রেখে দিবেন না।
  • অরিজিনাল চার্জার নষ্ট হয়ে গেলে ফুটপাথ বা গুলিস্তান টাইপের মার্কেট থেকে ডুপলিকেট চার্জার কেনা থেকে বিরত থাকুন। আপনার ফোন ব্যান্ডের শোরুম থেকে ফোন মডেলের সাথে মিল রেখে সঠিক মডেলের চার্জার ক্রয় করুন।

Image by Christoph Schütz from Pixabay


পড়ার মত আরও আছে

ক্যাটাগরিঃ টিপস ও ট্রিক্স