কোন কোন সময় মহানবী (সা.)-এর উপর দরুদ পড়তে হয়

HelloBanglaWorld - Know Everything in Banglaইসলামকোন কোন সময় মহানবী (সা.)-এর উপর দরুদ পড়তে হয়

আল্লাহ তায়া’লা সমগ্র বিশ্ববাসীর জন্য হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে “রহমত” স্বরূপ প্রেরণ করেন। বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আগমন সব সৃষ্টির জন্য রহমত। স্বয়ং আল্লাহ তাআলা এবং ফেরেশতারা বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জন্য রহমতের দোয়া করেন।

রাসুল (সা.)-এর প্রতি দরুদ ও সালাম পাঠ একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। যে ব্যক্তি রাসুল (সা.)-এর ওপর দরুদ ও সালাম পাঠ করে, সে প্রভূত কল্যাণ লাভ করে। দরূদের গুরুত্ব কত বেশি তা উঠে এসেছে পবিত্র কুরআনুল কারিমে। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে তাঁর প্রতি দরূদ ও সালামের ব্যাপারে নির্দেশ দিয়ে বলেন:

‘নিশ্চয়ই আল্লাহ নবির উপর রহমত নাজিল করেন এবং ফেরেশতারা তাঁর জন্য রহমতের দোয়া করেন। সুতরাং হে মুমিনগণ! তোমরাও তাঁর প্রতি দরূদ পড় এবং অধিক পরিমাণে সালাম পাঠাও।’ (সুরা আহজাব : আয়াত ৫৬)

শরিয়ত কিছু সময় ও স্থানে দরুদ পাঠ করার নির্দেশ দিয়েছে। রাসুল (সা.)-এর প্রতি দরুদ ও সালাম পাঠের অন্যতম সময় হলো সালাতের মধ্যে। সালাত অবস্থায় নিম্নোক্ত স্থানে দরুদ ও সালাম পাঠ করতে হয়:

তাশাহহুদের সময়

প্রত্যেক মুসল্লি তাশাহহুদের মধ্যে নবী করিম (সা.)-এর প্রতি সালাম প্রদান করবে। (বুখারি, হাদিস : ৮৩৫, ১২০২)

তাশাহহুদের পর

নামাজের শেষ বৈঠকে তাশাহহুদের পর দরুদ পড়তে হয়। নবী করিম (সা.) বলেন, ‘যখন তোমাদের কেউ সালাত আদায় করবে, তখন সে প্রথমে আল্লাহর গুণগান করবে, তারপর নবী করিম (সা.)-এর ওপর সালাম পাঠ করবে, তারপর স্বীয় পছন্দমতো দোয়া পাঠ করবে।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ১৪১৮)

জানাজার নামাজে

জানাজার নামাজের দ্বিতীয় তাকবিরের পর দরুদ পাঠ করবে। এক সাহাবি বলেন, ‘জানাজা সালাতের সুন্নতি পদ্ধতি হলো, ইমাম তাকবির দেবে, অতঃপর মনে মনে প্রথম তাকবিরের পর সুরা ফাতেহা পাঠ করবে (অথবা সানা পড়বে)। অতঃপর নবী করিম (সা.)-এর ওপর দরুদ পাঠ করবে। (ইমাম শাফেঈ, কিতাবুল উম্ম ১/২৩৯-২৪০; বায়হাকি ৪/৩৯)

আজানের পর

রাসুল (সা.) বলেন, “যখন তোমরা আজান দিতে শোনো, তখন তার পুনরাবৃত্তি করো যা মুয়াজ্জিন বলে। তারপর আমার প্রতি দরুদ পাঠ করো। কারণ যে ব্যক্তি আমার ওপর একবার দরুদ পাঠ করবে, আল্লাহ তার ওপর ১০ বার রহমত বর্ষণ করবেন। এরপর আমার জন্য আল্লাহর কাছে ‘অসিলা’ প্রার্থনা করবে। ‘অসিলা’ হলো জান্নাতের সর্বোচ্চ সম্মানিত স্থান, যা আল্লাহর বান্দাদের মধ্য থেকে শুধু একজন লাভ করতে পারবে। আর আমার আশা যে আমিই হব সেই ব্যক্তি। তাই যে ব্যক্তি আমার জন্য ‘অসিলা’র দোয়া করবে, কিয়ামতের দিন তার জন্য সুপারিশ করা আমার জন্য ওয়াজিব হয়ে পড়বে।” (মুসলিম, হাদিস : ৩৮৪)

দোয়ার সময়

রাসুল (সা.)-এর ওপর দরুদ পাঠ করা দোয়া কবুলের পূর্বশর্ত। আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিছে এসেছে, ‘নবী (সা.) ও তাঁর পরিবারবর্গের প্রতি দরুদ পেশ করা না হলে সব দোয়া কবুল হওয়া থেকে বাধাপ্রাপ্ত হয়ে থাকে।’ (তাবারানি, আল-মুজামুল আওসাত, হাদিস : ৭২১)

মসজিদে প্রবেশ ও বের হওয়ার সময়

রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যখন তোমাদের কেউ মসজিদে প্রবেশ করে, তখন সে যেন রাসুল (সা.)-এর ওপর দরুদ পাঠ করে।’ (মুসলিম, হাদিস : ৭১৩)

রাসুল (সা.)-এর নাম উচ্চারিত হলে : কথা বলা ও লেখার সময় যখন রাসুল (সা.)-এর নাম আসবে তখনই দরুদ পাঠ করতে হবে। সঙ্গে সঙ্গে যারা রাসুল (সা.)-এর নাম শুনবে তারাও তাঁর প্রতি দরুদ পাঠ করবে। রাসুল (সা.) বলেন, ‘সে-ই হচ্ছে কৃপণ, যার সামনে আমার নাম উচ্চারিত হয়েছে অথচ সে আমার ওপর দরুদ পড়েনি।’ (তিরমিজি, হাদিস : ৩৫৪৬)

জুমার দিন

আনাস বিন মালেক (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা জুমার দিন ও জুমার রাতে আমার প্রতি বেশি বেশি দরুদ পাঠ করো। কারণ যে আমার প্রতি একবার দরুদ পাঠ করে, আল্লাহ তার ওপর ১০টি রহমত নাজিল করেন।’ (আল জামে, হাদিস : ১২০৯)

যে কোনো মজলিস

যে কোনো ইসলামী মজলিসে রাসুল (সা.)-এর প্রতি দরুদ পাঠ জরুরি। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) বলেছেন, ‘যে সমস্ত লোক কোনো মজলিসে বসেছে অথচ তারা আল্লাহর জিকির করেনি এবং তাদের নবীর প্রতি দরুদও পাঠ করেনি, তারা বিপদগ্রস্ত ও আশাহত হবে। আল্লাহ তাআলা চাইলে তাদের শাস্তিও দিতে পারেন কিংবা মাফও করতে পারেন।’ (তিরমিজি, হাদিস : ৩৩৮০)

পরিশেষে

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দরূদের ফজিলত ও মর্যাদা অনেক বেশি। দুনিয়া ও পরকালে বান্দার জন্য দরূদের ফজিলতের বরকতে সৌভাগ্যের সব দুয়ার খুলে যাবে।

এমনকি গরিব-অসহায়দের জন্য রয়েছে বাড়তি সুবিধা। তারা দরূদের উল্লেখিত সব সৌভাগ্য লাভের পর পাবে সাদকার সাওয়াব। কেননা গরিবরা অর্থাভাবে সাদকা করতে পারে না। তাই যারা গবির তারা যদি প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি দরূদ পড়ে তবে তা হবে তাদের জন্য সাদকার সাওয়াব।

বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি দরূদ না পড়লে মুমিন বান্দার কোনো আবেদনই কবুল হবে না। দরূদ এমন এক গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। যা না পড়লে বান্দার কোনো দোয়াই আল্লাহ তাআলার দরবারে পৌঁছায় না।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত সব সময় প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ওপর বেশি বেশি দরূদ পড়া। বিশেষ করে যে কোনো প্রয়োজনের দোয়ার আগে দরূদ পড়ে নেয়া।

ক্যাটাগরিঃ ইসলাম

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.